জলঢাকায় মৃৎশিল্পের কারীগরদের এখন সুদিন মা-স্বরসতী পূজায় নির্মান শৈলী অসাধারণ

PUJA

শাহজাহান কবির লেলিন:
ঔঁম স্বরসত্য নমোঃ নিত্যাং, ভদ্রাকাল্লে বেদ ও বেদাংঙ্গো, বিদ্যাদ্ধাস্ তানেভ্য, এ বচসাহা এসো সুচন্দোনা পুষ্প বিল্ল, পত্রাংজ্বলী ঔঁম স্বরসত্য নমোঃ, ঔঁম বিদ্যাং দেবী নমোঃ ১ লা ফেব্রæয়ারীর ৫ম তিথীতে বিদ্যার দেবী মা-স্বরসতির প্রার্থনায় দিনটি কাটবে স্কুল-কলেজ ও ভার্সিটির ছাত্র/ছাত্রীদের এক আনন্দ মেলা। পূজা আর্চনায় ভক্তকুল মা-দেবীর আর্শীবাদ পেতে খুবেই মগ্ন। এরেই ধারাবাহিকতায় শনিবার থেকে দেখা গেছে, নীলফামারীর জলঢাকায় সনাতন ধর্মীয়দের উৎসবও থেমে নেই। তেমনি পিছিয়ে নেই মৃৎশিল্পের শিল্পীরা।

মাটি দিয়ে তৈরি মা-দেবীর প্রতিমা তৈরি করে এখন ভাল দিন কাটাচ্ছে জলঢাকা কিশোরগঞ্জ আংশিক দক্ষিন বড়ভিটা কামার পাড়ার ভদ্র বর্মনের ছেলে শিল্পী জগদিস চন্দ্র রায় (৩৫) বংশ পরিক্রমায় চলে আসছে মাটি দিয়ে তৈরির নানান উপকরণ।  এঁটেল ও চিটকা মাটি দিয়ে স্বরসতি পূঁজায় ২৫ টি প্রতিমা তৈরি করেছেন। প্রতিটি প্রতিমার মূল্য ৪ শত থেকে ৫ শত টাকা। বছরে দূর্গাপূঁজা, গোপালপূজা, লক্ষীপূঁজা, কালিপূঁজায় সুদিন ফিরে আসে মৃৎশিল্পের কারীগর জগদিস এর মত অনেকেরেই। এই উৎসব ঘিরে উপজেলার সর্বত্র এ সম্প্রদায়ের লোকজন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। গেল বছরের চেয়ে এবারের পূঁজা ভাল হবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহ: রাশেদুল হক প্রধান। হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক উৎপল ভট্টাচার্য ও নীলফামারী জেলা রিপোর্টাস ফোরামের সভাপতি মানিক লাল দত্ত বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশে এই সম্প্রদায়ের লোকজন নির্ভয়ে ভক্তের ভগবান মা-দেবীর আর্চনা করতে পারবেন। নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা মধ্য দিয়ে আরাম্ভ হবে মা-দেবীর পূঁজা আর্চনা।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।