ইতিহাস বলে জিতবে ক্রোয়েশিয়া, পরিসংখ্যান বলছে অন্যকথা

জলচিত্র অনলাইন ডেক্স: ১৯৯৮ সালের পর এবার দুর্দান্ত প্রতাপের সঙ্গেই ফাইনালে পৌঁছেছে ফ্রান্স। অপরদিকে প্রথবারের মতো যে কোনো বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলছে ক্রোয়েশিয়া। মজার ব্যাপার হলো ৯৮ সালে জিদানের দলের মুখোমুখি হয়েছিল ক্রোয়েটরা। তবে সেমি ফাইনালে সেবার হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল ক্রোয়েশিয়াকে।

দেশ স্বাধীনের মাত্র ২৭ বছরে শিরোপার কাছাকাছি পৌঁছেছে ক্রোয়েশিয়া। জয়ের স্বপ্ন নিয়েই বাংলাদেশ সময় আজ রাত ৯টায় মস্কোর লুজনিকিতে মাঠে নামবে তারা। প্রথম বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলা, তাই প্রস্ততি তাদের একটু বেশি। অপর দিকে ‘ডুয়েক্স’ মিশনে নামছে ফ্রান্স। ডুয়েক্স মানে হলো দুই। আজ জিতলে জিদানের পর আবারও ফরাসি উদযাপন দেখবে পুরো বিশ্ব।

কে জিতবে ফাইনাল তা দেখার আগে আসুন জেনে নেই এই দুই ফুটবল দলের পরিসংখ্যানগুলো :
বিশ্বকাপের যে কোনো ফাইনালে এই দুই দল প্রথমবারের মতো একে অপরের বিপক্ষে লড়ছে। এর আগে তারা নিজেরদের বিপক্ষে খেলেছে মাত্র ছয়বার।

আগের পাঁচটিতে ফরাসিরা জয় পেয়েছে তিনবার। বাকি দুটি ড্র। সে হিসেবে ফ্রান্স এবার ফেবারিট। কিন্তু রাশিয়া আসরে কোনো ফেবারিট দলই নিজেদের তকমাটা গায়ে রাখতে পারেনি। ভেঙেছে বহু ইতিহাস।

১৯৯৮ সালে ২-১ গোলে ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনাল খেলেছিল ফরাসিরা। এর পর ১৯৯৯ সালে একটি প্রীতি ম্যাচে ক্রোয়েটরা হেরেছিল ৩-০ গোলে।

২০০০ সালে আরও একটি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে ফরাসিরা জয় পায় ২-০ গোলে। এর পর তাদের মধ্যে আরেকটি ম্যাচ হয় ২০০৪ সালের ইউরোতে। উয়েফার সেই ম্যাচটিতে ২-২ গোলে ড্র করে ক্রোয়েটরা। ফরাসিদের ছিটকে পড়তে হয় সে আসর থেকে।

পরের ম্যাচটি ২০১১ সালে। ড্র হয় ম্যাচটি। এর পর গত ৭ বছরে কোনো ম্যাচ খেলেনি এ দুদল।

বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠা দেশগুলোর মধ্যে ক্রোয়েশিয়ার অবস্থান ১৩। আগের ইতিহাস বলছে, ১৯৯৮ সালে ফ্রান্স ও ২০১০ সালে স্পেন প্রথমবারের মতো ফাইনালের শিরোপা তাদের ঘরে তোলে। ইতিহাসের উপর ভর করলে এবার প্রথমবার শিরোপা জেতার সম্ভাবনা রয়েছে ক্রোয়েশিয়ার


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।